কোভিট -১৯  চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপি,
দেশে শুরু হতে পারে আগামী সপ্তাহ
থেকে ।


কোভিট -১৯ জটিল রোগীদের চিকিৎসায় আশা  জাগাছে প্লাজমা থেরাপি । বিশ্বের উন্নত দেশ এ এই থেরাপি সফলতা পেয়েছে । বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে এই থেরেপির জন্য প্রয়োজনীয় সেরে উঠা রোগির প্লাজমা সংগ্রহ প্রক্রিয়া ।এই সংক্রন্ত টেকনিকেল কমিটির প্রধান বলছেন যে ,

প্লাজমা থেরাপি্র অনুমোদন এর জন্য প্রটকল জমা দেয়া হয়েছে।আগামী সপ্তহর মধ্যেই শুরু হতে পারে এই প্লাজমা থেরাপি।



কোভিট -১৯ থেকে সুস্থ হয়া রোগীর শরীর থেকে নেয়ে হচ্ছে রক্তের এন্টিবডি য়া দিয়ে সারানো সম্ভব

জটিল রোগীদের চিকিৎসা ।কোভিট -১৯ থেকে সুস্থ হয়া ঢাকা মেডিকেল থেকে সস্থ হয়া চিকিৎসক প্রথন তার রক্তর প্লাজমা দান করেছে ।তার দেখা দেখি রাকিব মঞ্জুর ও রক্তর প্লাজমা দান করেছে।তাদের প্লাজমা জমা রাখা হয়েছে ব্লাড ব্যাংকে ।



রাকিব মঞ্জুর আরো বলেছেন কভিট ১৯ এর একটাই সুযোগ রয়েছে জটীল রোগীর প্রান বাচানোর জন্য ।

বিশ্বের অন্য দেশ গুলি তেও এই রক্তর জলিয় দ্রবণ বা প্লাজমা দিয়ে সুস্থ হয়েছেন অনেক জটীল রোগি। USA এখন প্রজন্ত সরকারি ভাবে ৮৭০০ টি রগী কে ঠিক করেছে ।এবং ভারতেও এই থেরেপি সরকারি ভাবে শুরু হয়েছে  ৮ই মে।

তবে আখন প্রজন্ত এই থেরাপি তে সব চেয়ে বাশি সফলতা পেয়েছে তুরস্ক।তাদের সুস্থ হয়ার হার সব চেয়ে বেশি। রক্ত দান যেই ভাবে করতে হয় ঠিক একি ভাবে করতে হয় রক্তর প্লাজমা সংগ্রহ । যদি কোনো করোনা সুস্থ ব্যক্তি তার রক্তর প্লাজমা দান করে তা হলে তিনি বাচাতে পারেন কয়েকটি প্রাণ । পূর্ণ সুস্থ হয়ার ১৪ দিন পর তিনি রক্তর প্লাজমা দিতে পারবেন । প্লাজমা প্রস্তুতি অনেক টা এগিয়ে গেলেও এখনও অনুমদন হয় নি স্টাডি প্রটকল ।

অনুমদন পাওয়ার সাথে সাথে কাজ সুরু করে দেয়া হবে ।



ধন্যবাদ ।

Post a Comment

Previous Post Next Post